টিপস এন্ড ট্রিক্স

মাছ ধরার সহজ নিয়ম

মাছ ধরার সহজ  নিয়ম 

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও আল্লাহ রহমতে ভালো আছি আলহামদুলিল্লাহ।

আজকে আমি আলোচনা করবো মাছ ধরার সহজ কিছু  পদ্ধতি নিয়ে। মাছ ধরতে কার না ভালো লাগে বলেন? মাছ ধরা একটা শৌখিন নেশা।

ছোট বেলায় কাদা পানিতে মাছ শিকার করার মজা নেন নি এমন মানুষ পাওয়া কঠিন। অনেকের মাছ ধরার এমন নেশা আছে,যার কারনে চাকরি বাকরি পর্যন্ত ছেড়ে দিয়ে মাছ ধরার কাজে লেগে পরে।

এই যেমন আমাকেই ধরুন। আমি মাছ ধরার নেশায় পরে স্কুলে ফাইনাল পরিক্ষা দিতে চাচ্ছিলাম না। একদিন আমাদের বাড়ির সামনের একটি খালে লোকজন প্রচুর মাছ শিকার করতেছিলো, ঐদিন আমার ৭ শ্রেনীর ফাইনাল পরিক্ষা ছিলো ।

মাছ ধরার নেশায় আমি পরিক্ষার কথা ভুলে গিয়ে শুধু মাছ ধরতেই ব্যাস্ত ছিলাম । হঠাৎ আমার আম্মু এসে ডাকাডাকি শুরু করলো , এই তাড়াতাড়ি উঠ পরিক্ষা দিতে যা ।

আমি সেদিন মাকে বলেছিলাম মা, পরিক্ষা তো সামনে বছর দেওয়া যাবে , মাছ তো সমানে বছর পাওয়া যাবে না! আজকে আমি পরিক্ষা দিতে যাবো না মাছ ধরবো সারাদিন ।

মা তো আমার এই কথা শুনে লাটি নিয়ে এসে পিটুনি শুরু করলো । পিটুনি খেতে খেতে সেদিন পরিক্ষা দিতে গেলাম । পরিক্ষা দিতে গেলেও সেদিন আমার মনটা ছিলো মাছ ধরার জায়গায় ।

মাছ ধরার সহজ নিয়মঃ

মাছ ধরার জন্য অনেক পদ্ধতি প্রচলিত আছে আামাদের দেশে । এলাকা ভেদে মাছ ধরার বিভিন্ন কৌশল লক্ষ্য করা যায়  ।

আমি আজকের এই লেখায় মাছ ধরার হাজার হাজার নিয়ম থেকে কয়েকটি সহজ নিয়ম নিয়ে কথা বলবো ইনশাআল্লাহ ।

যেভাবে আমি আমার ছোট বেলায় মাছ ধরেছি ঠিক সেইসব পদ্ধতি নিয়েই আজকে আলোচনা করবো ।

১। হাত দিয়ে মাঝ ধরা

২। বরশি দিয়ে দিয়ে মাছ ধরা

৩। বাশের চোঙ্গ দিয়ে মাছ ধরা

৪। তিনকোনা জাল দিয়ে মাছ ধরা

৫। ঝাকি জা্ল দিয়ে মাছ ধরা

৬। ছিপজাল দিয়ে মাঝ ধরা

৭। খরা দিয়ে মাছ ধরা

৮। ফাসিঁ জাল দিয়ে মাছ ধরা

৯। দিয়াল দিয়ে মাছ দরা

১০ । জুইতা বা ফলা দিয়ে মাছ ধরা ।

আমি মোটামুটি এইসব পদ্ধতি ব্যাবহার করে মাছ শিকার করেছি ।  এখন আমি এইসবের বিস্তারিত আলোচনা করবো ।

 

হাত দিয়ে মাছ ধরাঃ

হাত দিয়ে মাছ ধরেছেন কখনো ? হাতে আপনার কোন কিছু নেই । মাছ ধরার কোন সরাঞ্জম নেই । কিন্তু আপনার সামনে মাছ ধরার জায়গা আছে তখন আপনি কি করবেন ? আপনি যাই করুন না কেন ।

আমি কন্তিু মাছ ধরা থেকে বিরত থাকবো ন। আমার হাতে মাছ ধরার কোন সরাঞ্জম না থাকলেও আমি মাছ ধরার চেষ্টা করবই । কিভাবে করবো তাহলে শুনুন ।

শুধু মাত্র হাত দিয়ে মাছ ধরার একটা মজার ব্যাপার । আমি যমুনা পারের ছেলে । গোসল করতে গিয়েই  মাছ ধরতাম।

আমি পানির নিচে ডুব দিয়ে দুই হাত এক করে হাতরাতে থাকতাম । নদীর কিনার দিয়ে গর্তের ভিতরে হাত চালিয়ে দেখতাম।

মাছ হাতের নিচে পড়তেই ছুটছুটি শুরু করতো আমার আনন্দ বেড়ে যেত। খপ করে হাতের মুুঠ পাকিয়ে বন্ধি করে ফেলতাম শিকার কে ।

আবার মাঝে মাঝে নদীর তলদেশে সমতলেও দু হাত এক করে হাতরাতে থাকতাম । তখন হাতের নিচে মাছ পরে যেত।

এভাবে পুকুরে , ডোবাতে, খালের কাদাপানিতে হাতিয়ে অনেক ধরেনের মাছ শিকার করতাম ।

হাত দিয়ে মাছ ধরার ক্ষেত্রে কিছু সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে  ।

অনেক সময় হাতের নিচে ধারালো কিছু পরে যেতে পারে এতে হাত কেটে যেতে পারে ।

অনেক কাটাযুক্ত মাছ যেমন, শিং,মাগুর, কৈ, পাঙ্গাস এসব মাছ হাত দেয় ধরতে গেলে যদি কাটা ফুটিয়ে দেয় তাহলে প্রচন্ড ব্যাথায় আপনি অস্থির হয়ে যাবেন ।

হাত দিয়ে গর্ত থেকে মাছ ধরার সময় খেয়াল রাখতে হবে মাছের বদলে সাপ ধরে যেন বিপদে না পড়েন ।

বরশি দিয়ে মাছ ধরার সহজ নিয়মঃ

এই পৃথীবিতে মাছ ধরার যত পদ্ধতি আছে যত ধরনের নিয়ম কানুন আছে তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ এবং জনপ্রিয় মাছ ধরার পদ্ধিতির নাম হলো বরশি দিয়ে মাছ ধরা ।

বরশি দিয়ে আপনি বিভিন্ন ধরনের মাছ ধরতে পারবেন । রুই কাতলা, মাগুর, ট্যাংরা, পুটি , সহ প্রায় সব ধরনের মাছই আপনি বরশি দিয়ে ধরতে পারবেন ।

এই পদ্ধিতিতে মাছ ধরা অনান্য মাছ ধরার পদ্ধিতি থেকে সহজ্ এবং আরামদায়ক ।

বরশি দিয়ে মাছ ধরতে আপনার যা যা লাগবেঃ

১। একটি ছিপ লাগবে । বাশ অথবা বেত দিয়ে বানানো যেকোন একটি ছিপ হলেই হবে ।

২। একটি ভালো কাল যুক্ত লো বা পিতলের বরশী লাগবে ।

৩ । বরশি  তে লাগানোর জন্য মাছের খাদ্য বা টোপ লাগবে ।

প্রথমে একটি ছিপ নিয়ে তারসাথে সুতার সাহায্যে একটি বরশি যুক্ত করে নিন ।

এরপর সেই বরশির মাথায় মাছের জন্য কিছু খাদ্য আটকিয়ে পানিতে ফেলুন । এরপর দেখবেন মাছ এসে আপনার ফেলানো বরিশি তে ঠোকর মারতেছে। এভাবে ঠোকাতে ঠোকাতে একসময় মাছটি আপনার বরশিতে আটা্কানো খাবারটি গিলে ফেলবে আর তখনিই আপনি ধরে ফেলবেন মাছটিকে ।

বরশি দিয়ে মাছ ধরার জন্য কি কি খাবার প্রয়োজনঃ

বরশি দিয়ে মাছ শিকার করতে হলে আপনাকে মাছের জন্য কিছু খাদ্য যা আঞ্চলিক ভাষায় আমরা টোপ বলি সেরকম কিছু টোপ লাগবে ।

যেমন ধরুন । পুটি মাছ ধরতে পাউরুটি, ময়দা,টোপ হিসেবে ব্যাবহার করা যায়।

বড় বোয়াল মাছ ধরতে , মৌমাছির বাচ্চা, টাকি মাছ, তেলেপোকা, এসব খাবার ব্যাবহার করা হয় ।

 

বাশের চোঙ্গ দিয়ে মাছ ধরাঃ

আমি ছোটবেলায় বাশের চোঙ্গ দিয়ে মাছ শিকার করেছি । বাশের চোঙ্গ কেটে পনিতে ফেলে রেখে আসছি ।

চোঙ্গের ভিতর কিছু খাবার দিয়ে আসছি । দু একদিন পর সেই চোঙ্গ উঠিয়ে কৈ মাছ  , টাকি, শিং, তেলাপিয়পা,।

পুটি সহ নানা রকম পাচমিশালী মাছ পেয়েছি ।

তিনকোনা জাল দিয়ে মাছ ধরার নিয়মঃ

তিন কোনা জাল দিয়ে মাছ ধরা আমাদের এলাকায় একটি জনপ্রিয় এবং বহুল প্রচলিত মাছ ধরার পদ্ধতি । যাকে আমরা ঠেলা জাল বা দোয়াইনা জাল বলে থাকি ।

এই ধরনের জাল দিয়ে সাধারনত অল্প পনিতে মাছ ধরা হয় । মাঝে মধ্যে নদির স্রোতের বিপরিতে এই জাল ধরে রেখে একটু পর পর উঠালে অনেক সুস্বাধু মাছের দেখা পাওয়া যায়।

ছিপজাল দিয়ে মাছ ধরার নিয়মঃ

মাছ ধরার এই পদ্ধতিটাও সারাদেশে বিশেষকরে উত্তর অঞ্চলে বেশ জনপ্রিয়্ একটি পদ্ধতি । এই পদ্ধতি মাছ ধরতে অনেকগুলা বাশ লাগে । যেমন একটি শক্ত লম্বা গাড়া বাশ, একটি ভর দেওয়া বাশ, চারটি ছিপ যাকে আমরা কুরা বাশ বলি ।

এই পদ্ধিতে বিভিন্ন ধরনের বড় বড় মাছ শিকার করা যায় ।

ফাসিঁ জাল দিয়ে মাছ ধরার নিয়মঃ

নাম  ‍শুনেই ভয় পেয়েছেন মনে হয়? হ্যা এই পদ্ধতি মাছ কে ফাসির কাষ্টে ঝুলিয়ে শিকার করা হয় । তবে মজার ব্যাপার হলো মাছ নিজে নিজেই এসে এই ফাসি নিয়ে নেয় ।

এই জাল সন্ধ্যা রাতে পানিতে যেখানে মাছ চলাচলের সম্ভাব্য রাস্তা সেখানে ফেলে আসলে সকালে গিয়ে দেখবেন অনেক মাছ ফাসিঁতে ঝুলে তার মৃত্যদন্ড কার্যকর করে বসে আছে ।

আপনি গিয়ে টপাটপ ধরে ফাস ছাড়িয় অপনার পাত্রে নিয়ে ফেলুন ।

শিং মাছ ধরার নিয়মঃ 

মাছ ধরা যেমন মজার একটি বিষয় । ঠিক তেমনি মাছ ধরার যদি সঠিক নিয়ম না জানেন তবে মহা বিপত্তি ।

মাছ যদি আপনাকে তার কাটা ফুটিয়ে দেয় তবে বুঝবেন মাছ ধরার কেমন মজা ।

শিং মাছ ধরতে গিয়ে কখনই মাছের লেজ ধরবেন না । তাহলে কাটা ফুটিয়ে দেবে ।

সবসময় শিং মাগুর টেংরা এজাতিয়ে মাছ ধরতে হলে , প্রথমেই মাছের মাথা চাপদিয়ে ধরবেন ।

মাছ ধরার ঔষধঃ

অনেকেই মাছ ধরার জন্য বিভিন্ন ঔষধ ব্যাবহার করে থাকেন । আসলে মাছ ধরার জন্য এই ধরনের পদ্ধিতি দেশ ও সমাজের জন্য ক্ষতিকর  এবং আইনত দন্ডনিয় অপরাধ ।

ঔষধ ব্যাবহার করে মাছ শিকার করলে মাছের বংশ বিস্তার রোধ হয় । যা দেশের জন্য মারাত্বক হুমকি । কাজেই ঔষধ ব্যাবহার করে মাছ শিকার করার চিন্তা মাথা থেকে নামিয়ে ফেলুন ।

শেষ কথঃ

মাছ ধরার নিয়ম নিয়ে আজকে আর কোন কথা বলতে চাই না । আজকের আর্টিকেল এখানেই শেষ করছি ।

মাছ ধরার কোন পদ্ধতি না বুঝে থাকলে আমাদের কে কমেন্ট করে জানাতে পারেন ।

আমরা চেষ্টা করবো আপনাকে বিষয়টি বুঝিয়ে দেবার । আজকের মত এখানেই শেষ করছি ।

ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন । বাংলা পরার্মশ ব্লগের সাথেই থাকুন । ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.