লাইফ স্টাইল

ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম- নিয়ম জেনে ফ্রিজ ব্যাবহার করুন

­ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ। আশাকরি ভালো আছেন সবাই।

বাংলা পরামর্শ ব্লগে সবাইকে স্বাগতম। আজকে আমরা আপনাদের সামনে নতুন একটি পরামর্শ নিয়ে হাজির হয়েছি।

অনেকেই জানতে চান ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়মডিপ ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম। সিঙ্গার ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম।

ওয়ালটন ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম। ফ্রিজে কি কি খাবার রাখা যাবে না।

এরকম ফ্রিজির ব্যাবহার সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দিতেই আজকে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি।

আশা করি আজকের আর্টিকেলটি পুরোটা মনোযোগ সহকারে পড়লে ফ্রিজ ব্যাবহার। ফ্রিজের টুকিটাকি সমস্যা এবং সমাধান নিয়ে আর কোন চিন্তা থাকবে না ইনশাআল্লাহ।

ফ্রিজ ব্যাবহারের সঠিক নিয়মঃ

প্রতিটি জিনিসেরই ব্যাবহারিক একটা নিয়ম কানুন আছে। এই নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন মেনে যদি সেই জিনিস ব্যাবহার করা হয় তাহলে জিনিসটা বেশীদিন টিকে থাকে।

আর যদি ব্যাবহারের নিয়ম না জেনে নিজের ইচ্ছেমত ব্যাবহার করা হয় তবে সেটা খুব দ্রুতই নষ্ট হয়ে যায়।

ধরুন আপনি একটি মোটরসাইকেল কিনলেন। এখন আপনি যদি মোটরসাইকেল চালানোর নিয়ম কানুন না জানেন , তাহলে কি হবে?

রাস্তায় মোটরসাইকেল নিয়ে বের হয়ে আপনি যদি আপনার ইচ্ছেমত গাড়ি ড্রাইভ করতে চান।  তবে মোটরসাইকেল তো চলবেই না। উল্টো এক্সিডেন্ট করে গাড়ি তো নষ্ট হবেই সাথে আপনার মহামূল্যবান জীবনটাও চলে যেতে পারে।

আর যদি মোটরসাইকেল চালানোর সব কায়দা কানুনর আপনার রপ্ত থাকে। তবে আপনি খুব সহজেই মোটরসাইকেল চালিয়ে আপনি আপনার গন্তব্যে পৌছাতে পারবেন।

কাজেই যেকোন জিনিস পরিচালনার জন্য সঠিক নিয়ম কানুন জানা অতি জরুরি।
ফ্রিজ এখন আর বিলাসিতার কোন বস্তুু নয়।

এখন ঘরের এই আসবাবটি মানুষের জীবনের সাথে নিত্যপ্রয়োজনীয় হয়ে উঠেছে৷আগে ১০০ টি পরিবারে ১ টি ফ্রিজ থাকতো।

এখন ১০০ টি পরিবারে খোঁজ করলে ৮০ টি পরিবারেই বিভিন্ন ডিজাইনের ফ্রিজ পাওয়া যায়।

কারো কারো ঘরে তো দুটো করেও ফ্রিজ রাখা আছে।

প্রতিদিন নতুন নতুন ফ্রিজ কেনা হচ্ছে। নতুন ফ্রিজ কিনলেও অনেকেই নতুন ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম না জানার কারনে সখের নতুন ফ্রিজটি খুব সহজেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

দৌড়া দৌড়ি করতে হচ্ছে ফ্রিজ টেকনিশিয়ানদের পিছনে পিছনে। তাই আজকে আমরা এই আলোচনার মাধ্যমে শিখবো কিভাবে একটি নতুন ফ্রিজ ব্যাবহার শুরু করেন করবেন।

কিভাবে ফ্রিজ পরিষ্কার করবেন৷ নতুন পুরাতন সহ সকল ধরনের ফ্রিজ ব্যাবহারের সঠিক গাইডলাইন থাকবে আজকের এই পোষ্টে।

নতুন ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়মঃ

১। বাসায় নতুন ফ্রিজ সেটআপ করার আগে বৈদ্যুতিক লাইনগুলা ঠিকঠাক আছে কিনা তা চেক করে নিন।

না থাকলে একজন দক্ষ ইলেকট্রিশিয়ান ডেকে এনে ওয়্যারিং করিয়ে নিন, আর্থিং সিস্টেম ঠিক করুন এরপর ফ্রিজের লাইন সংযোগ দিন।

২। মাল্টিপ্লাগ মাল্টিবোর্ড,,দুর্বল সকেট, অথবা বৈদ্যুতিক লুচ কানেকশন দিয়ে কখনই ফ্রিজ চালাবেন না।

এতে করে খুব সহজেই যেকোন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে নষ্ট হয়ে যেতে পারে আপনার শখের ফ্রিজটি।

ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম

৩। ফ্রিজ এমনভাবে স্থাপন করুন যাতে পিছনের দিকে একটু হেলে থাকে। এতে করে ফ্রিজের গা বেয়ে নামা পানি যথাস্থানে পৌছাতে পারবে।

৪। সরাসরি ফ্লোরে ফ্রিজ না রেখে, বাজারে ফ্রিজ রাখার স্ট্যান পাওয়া যায়, এখন অবশ্য এই স্ট্যান নতুন ফ্রিজের সাথে ফ্রি দিয়ে দেয়।

তো যেভাবেই হোক একটি স্ট্যান মেনেজ করে স্ট্যানের উপর ফ্রিজ রাখুন।

৫। ফ্রিজ এক স্থান থেকে অন্যস্থানে পরিবহন করার পর সাথে সাথেই চালু করবেন না।

মিনিমাম চরঘন্টা স্থীর রাখুন এরপর ফ্রিজ চালু করুন। অন্যথায় গ্যাস লাইন বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

আপনারা পড়ছেন ফ্রিজ ব্যাবহার করার নিয়ম

৬। আপনার শখের ফ্রিজটি একটু খোলামেলা জায়গায় রাখার চেষ্টা করুন। অনেকেই দেখা যায় ফ্রিজ একদম দেয়াল ঘেষে অথবা অন্য কোর ফার্নিচার ঘেষে রেখেছে। এভাবে কখনই রাখবেন না।

একটু খোলামেলা জায়গায় রাখুন। তবে খেয়াল রাখবেন সরাসরি রোদ যেন না লাগে।

৭। ফ্রিজের ভিতরে চিপাচিপি, গাদাগাদি করে কোন কিছু রাখবেন না।

৮। ফ্রিজে শাক সবজি রাখার আগে ভালোভাবে ধুয়ে পানি ঝাড়িয়ে নিন।

এরপর পলিথিনে মুড়িয়ে ফ্রিজে রাখুন। এতে করে বেশীদিন পর্যন্ত শাক সবজি টাটকা থাকে।

৯। ফ্রিজ খোলার আগে অবশ্যই ফ্যানের সুইচ বন্ধ করুন

১০। ফ্রিজ খোলার আগেই সিধান্ত নিন ফ্রিজ থেকে কি কি বের করবেন। ফ্রিজ খুলে রেখে সিধান্ত নেবেন না।

১১। ফ্রিজে মাছ মাংস যাই রাখুন ছোট ছোট পলি করে রাখুন।

১২। কখনই গরম খাবার ফ্রিজে রাখবেন না,খাবার রান্না করে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় এনে এরপর ফ্রিজে রাখুন।

১৩। ফ্রিজের নরমালে রান্না করে রাখা খাবার ঢেকে রাখুন এতে করে ফ্রিজের ভিতর গন্ধ কম হবে।

১৪। ফ্রিজের টপে ফুলদানি, শো পিচ বা এজাতিয় কিছু রাখবেন না।

১৫। যদি কখনো দেখেন যে ফ্রিজে লাইন পাচ্ছে না, তখন আগেই ফ্রিজ গুতাগুতি না করে আগে দেখুন ফ্রিজের বৈদ্যুতিক লাইন যে সকেট থেকে নিয়েছেন সেখানে লাইন আছে কিনা।

যদি না থাকে তবে মিস্ত্রী ডেকে ঠিক করিয়ে নিন। নিজে নিজে কিছু করবেন না

১৬। বর্ষাকালে বাতাসে জ্বলীয় বাষ্পের পরিমান বেশী থাকায় ফ্রিজের গায়ে ফোঁটা ফোঁটা পানি জমতে পারে। শুকনো কাপড় দিয়ে তা মুছে ফেলুন।

১৭। ফ্রিজ সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন।

 

ডিপ ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়মঃ

এখন আমরা জানবো ডিপ ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম। ডীপ ফ্রিজ আর নরমাল ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়মে তেমন কোন তফাৎ নেই।

নিয়ম একই তবে ডিপ ফ্রিজ ব্যাবহারের জন্য আগের বর্নিত নিয়মের সাথে আরো কিছু যোগ করছি তা হলো,

১। ডিপ ফ্রিজের ভিতরে একসাথে অনেক খাদ্যদ্রব্য পুর্ন করে না রেখে ধাপে ধাপে পলি ব্যাগে করে রাখুন।

২।ডিপ ফ্রিজে রাখা খাবার একবার বের করে পরে আবার রাখা স্বাস্থ সম্মত নয়।

তাই রাখার সময় প্রয়েজন মত অল্প অল্প করে আলাদা আলাদা ব্যাগে ভরে রাখুন।

৩। মাছ মাংস আলাদা আলাদা সাইডে রাখুন।

 

ফ্রিজে কি কি রাখা যাবে নাঃ

ফ্রিজ আছে বলেই যা ইচ্ছে তাই রাখবেন এটা মোটেও ঠিক নায়। সব খাবার যে ফ্রিজে রাখলেই ভালো থাকবে এই ধারনাও সঠিক নয়।

কিছু কিছু খাবার আছে যেগুলো ফ্রিজে রাখা ঠিক নয়। আমরা এখন জানবো কোন কোন খাবার ফ্রিজে রাখা ঠিক নয়।

১। আলু
২। পেঁয়াজ
৩। রসুন
৪। বাদাম
৫। মধু
৬। জলপাই তেল
৭। মিষ্টি আলু
৮। আম
৯। কফি
১০। কুমড়া
১১। পিঠা
১২। শুকনো ফল
১৩। গুড়া মসলা
১৪। টেমেটো কেচাপ
১৫। সয়া সস
১৬। ভেষজঃ তুলসি পাতা, ধনিয়া পাতা, এরকম ভেষজ জাতীয় জিনিস ফ্রিজে রাখলে দ্রুত নিস্তেজ এবং স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।

১৭। টমেটোঃ টমেটো ফ্রিজে রাখলে দ্রুত নষ্ট হয়ে যায় স্বাদ নষ্ট হয়। টমেটো খোলামেলা আলো চলাচল করে এরকম জায়গায় রাখলে বেশীদিন ভালো থাকে।

১৮। পাকা কলা

ফ্রিজ কত দিন পর পর পরিষ্কার করবো?

উত্তরঃ সাধারনত তিন মাস পর পর ফ্রিজ পরিষ্কার করা ভালো। তবে এর আগে যদি ফ্রিজ অতিরিক্ত ময়লা হয় তবে পরিষ্কার করবেন।

তবে কোনভাবেই তিন মাসের বেশী যাওয়া উচিত নয়।।

ফ্রিজের ভলিয়ম কততে রাখবো?

উত্তরঃ ফ্রিজের ভলিয়ম স্বাভাবিক ভাবে ২.৫ থেকে ৩.৫ রাখা ভালো।

তবে ফ্রিজের ভিতরে মালামাল ভেদে পাওয়ার কম বেশী করে নিতে হবে।

পড়ুন- পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান 

ফ্রিজের ভিতরে শব্দ হয় কেন?

উত্তরঃ ফ্রিজের মধ্যে অটো থার্মস্ট্যান্ড থাকে,  এই অটো থার্মস্ট্যান্ড যখন চালু হয় তখন ফ্রিজের ভিতর শব্দ হয়।

তবে সবসময় যদি ফ্রিজের ভিতর শব্দ হতেই থাকে তাহলে অতি দ্রুত একজন ফ্রিজ টেকনিশান কে দেখান।

ওয়ালটন ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়মঃ

 

অনেকেই জানতে চান ওয়ালটন ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম কি কি? আসলে সব ফ্রিজের ব্যাবহার নিয়ম একই।

তেমন কোন পার্থক্য নাই। পুরোপুরি নিয়ম জানতে ফ্রিজ কেনার সময় একটা ইউজার ম্যানুয়াল বই দেয়।

ঐ বইটি দেখে দেখে আপনি ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম জানতে পারবেন

মোট কথা সিঙ্গার ফ্রিজ ব্যাবহারের নিয়ম যা ওয়ালটন ফ্রিজ, ভিশন ফ্রিজ, মিনিস্টার ফ্রিজ সহ এই জগতে যত ফ্রিজ আছে সব ফ্রিজের ব্যাবহারের নিয়ম প্রায় একই।

 

আজকের মত এখানেই শেষ করছি। সামনে দিনে হয়তো আবারো অন্য কোন বিষয়ে পরামর্শ নিয়ে হাজির হবো আপনাদের সামনে।

সে পর্যন্ত ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন বাংলা পরামর্শ ব্লগের সাথেই থাকুন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.